টাকা নিচ্ছে বেক্সিমকো, তাদেরকেই আনতে হবে টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসকে ভা’রতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কোভিশিল্ড টিকা আনার জন্য টাকা দেওয়া হচ্ছে, তাদেরকেই টিকা আনতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার (২৫ এপ্রিল) তিনি গণমাধ্যমকে এই কথা বলেন।

গত বছরের নভেম্বরে করো’’নার টিকা আনার জন্য ত্রিপক্ষীয় চুক্তি হয়। চুক্তিমতে ভা’রতের সেরাম ইনস্টিটিউট বেক্সিমকো ফার্মা’র মাধ্যমে বাংলাদেশকে এই টিকা দেওয়ার কথা। একইসাথে প্রতি মাসে আসার কথা ৫০ লাখ ডোজ। কিন্তু চুক্তিমত বাংলাদেশ সেই টিকা পাচ্ছে না। ইতোমধ্যে ভা’রত টিকা রফতানিতে দিয়েছে নিষে'ধাজ্ঞা। এখন বাংলাদেশের হাতে যে টিকা আছে তা দিয়ে আর সর্বোচ্চ দুই স'প্ত াহ চলতে পারে।

এ বি'ষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এটা ত্রিপক্ষীয় চুক্তি হয়েছিল। এখানে বেক্সিমকো এজেন্ট। এজেন্ট হিসেবে তাদের দায়িত্ব হচ্ছে—তারা ভ্যাকসিন ওখান (সেরাম) থেকে প্রকিউর (কিনে) করে আমা'দের হ্যান্ডওভা’র করবে। তারা এজেন্ট হিসেবে সেরামকে প্রেসার করবে। এই দায়িত্ব তাদের ওপরেও বর্তায়। আম’রা তো যখনই কোনও চিঠি লিখি, বেক্সিমকোকেই লিখি। কারণ, বেক্সিমকো এখানে সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান। তারা সেরামের সঙ্গে যোগাযোগ করে।

তিনি আরও বলেন, সরাসরি সেরামের সঙ্গে আমা'দের যোগাযোগ তেমন কখনও হয়নি। তারপরও আম’রা সরকারের পক্ষ থেকে চাপ সৃ'ষ্টি করার জন্য সেরামকে সরাসরি চিঠি দিয়েছি এবং বাংলাদেশে ভা’রতের রা'ষ্ট্রদূতকে রেগু'লার নক করা হয়েছে। ভা’রতের পররা'ষ্ট্র মন্ত্রণালয়কেও নক করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভা’রতের প্রধানমন্ত্রীকেও নক করেছেন, যখন তিনি এখানে এসেছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বেক্সিমকোর দায়িত্ব টিকা এনে দেওয়া। তাদের দায়িত্ব আছে এবং সেজন্য সে চুক্তিব'দ্ধ। সেজন্য দে আর পেইড ফর। টিকা এনে দেওয়ার জন্য তাদের চার্জেজও দেওয়া হচ্ছে। আম’রা তাকে যৌ'থভাবে ফেস করছি। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, বেক্সিমকোর দায়িত্ব শেষ হয়ে গেলো।

তবে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ব্যাপস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, সেরাম টিকা রে'ডি করে রেখেছে, এখন সরকারকে ‘শক্ত স্টেপ’ নিতে হবে।

এ বি'ষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এটাই তো সরকারি চাপ, এর বাইরে আর তো কোনও চাপের বি'ষয় আমা’র জানা নেই। আম’রা কন্টিনিউয়াস এই চাপটা রাখি আমা'দের পক্ষ থেকে।’

Facebook Comments
Back to top button