কিছু রোহি’ঙ্গা ফেরত নিতে রাজি মিয়ানমার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রাথমিকভাবে কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ফেরত নিতে মিয়ানমা'র রাজি হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররা'ষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। রোববার ইউনিভার্সিটি অব প্রোফেশনালস আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ৮ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা মিয়ানমা'রকে দিয়েছে। সেখান থেকেই কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গাকে নিতে রাজি হয়েছে তারা। রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসং'ঘকে আরো দায়িত্বশীল আচরণের আহ্বানও জানান তিনি।

রোহিঙ্গা মিয়ানমা'রের পশ্চিমের রাখাইন রাজ্যের একটি রা'ষ্ট্রবিহীন ইন্দো-আর্য জনগোষ্ঠী। অধিকাংশ রোহিঙ্গা ইসলাম ধর্মের অনুসারী। যদিও কিছু সংখ্যক হিন্দু ধর্মের রয়েছে। ২০১৭ সালের আগস্টে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমা'র সরকার ব্যাপক নি'র্যা'তনন চালালে তারা প্রাণভয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়।

২০১৭ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমা'রের মধ্যে রোহিঙ্গা প্র'ত্যাবাসন চুক্তিও হয়। এই চুক্তি অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার প্রক্রিয়া একবার শুরুও হয়েছিলো। কিন্তু সে যাত্রায় তা সফল হয়নি।

এদিকে, সংসদ সদস্য পাপুলের কুয়েতে সাজার বি'ষয়ে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ সরকার কিছু জানে না বলে জানান পররা'ষ্ট্রমন্ত্রী। কুয়েত সরকার পাপুলের বি'ষয়ে জানালে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি। বি'ষয়টি নিশ্চিত 'হতে কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রা'ষ্ট্রদূতকে জানানো হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী। তবে পাপুলের এই সাজা বাংলাদেশের জন্য ল'জ্জাজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

পররা'ষ্ট্রমন্ত্রী আরো জানান, ফেব্রুয়ারির প্রথম স'প্ত াহে বাংলাদেশ ও ভারতের মহাপরিচালক পর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন পররা'ষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

Facebook Comments
Back to top button