আইনি পরামর্শ নিতে রেলমন্ত্রীর কাছে এসেছিলেন শাম্মী, সেখান থেকেই বিয়ে

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজে'লার মেয়ে শাম্মী আকতার মনিকে (৪২) বিয়ে করেছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। শনিবার (০৫ জুন) ইসলামী শরিয়ত ও সরকারি আইন মেনে তাদের বিয়ে সম্প’ন্ন হয়। শাম্মী আকতার মনিও পেশায় একজন আইনজীবী। রেলমন্ত্রীর কাছে আইনি পরামর'্শ নিতে গিয়ে একে অ’পরকে পছন্দ করেন।

এরপর পারিবারিকভাবেই বিয়ে হয় তাদের। গত শনিবার ঢাকায় হেয়ার রো’র্ডে মন্ত্রীর সরকারি বাসভবন তন্ময়ে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। শাম্মী আকতার মনির বড় ভাই মো. জাহিদুল ইসলাম মিলন হোসেন কা’লের ক’ণ্ঠকে বি'ষয়টি নিশ্চিত করেছেন। অ্যাড. শাম্মী আকতার মনি’র বিরামপুর পৌরশহরের নতুন বাজার এলাকার আব্দুর রহিমের মেয়ে। তারা দুই ভাই এক বোন।

অ্যাড. শাম্মী আকতারের ভাই জাহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, আমার বোন শাম্মী ঢাকার উত্তরায় থাকেন। সে আই’ন বি'ষয়ে পড়াশোনা শেষ করে হাইকোর্টে এক সিনিয়রের সঙ্গে প্রাকটিস করছেন। কয়েকদিন আগে আ’ইন বি'ষয়ে পরমার্শ নিতে রেলমন্ত্রীর কাছে যান তিনি। সেখানেই আমার বোনকে রেলমন্ত্রীর পছন্দ হয় এবং পরিবারের কাছে বিয়ের বি'ষয়ে প্রস্তাব দেন। এরপর পারিবারিকভাবে গত ৫ জুন তাদের বিয়ে সম্প’ন্ন হয়। তিনি আরো বলেন, বিয়েতে বরপক্ষে উপস্থিত ছিলেন বিরামপুরের বিচারপতি ইজারুল হক ও তার স্ত্রী। কনে পক্ষে আমি ও আমার ভাই উ’পস্থিত ছিলাম।

এই বিয়ের মধ্যস্ত’তাকারী হিসেবে ছিলেন বিরামপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র লিয়াকত আলী টুটুল। তিনি বলেন, আলোচনা ঢাকা থেকে শুরু হলেও আমি ঘটকের দায়িত্বে ছিলাম। কত টাকায় কাবিন হয়েছে জানতে চাইলে তিনি পনরে জানাবেন বলে এড়িয়ে যান। নূরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রী নিলুফার জাহান ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে মা'রা যান।

তাদের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। তিন সন্তানেরই বিয়ে হয়েছে। ৬৫ বছর বয়সী নূরুল ইসলাম ১৯৫৬ সালের ৫ জানুয়ারি পঞ্চগড়ে জন্মগ্রহণ করেন। পঞ্চগড়-২ (বোদা-দেবীগঞ্জ) আসন থেকে নবম, দশম এবং একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৮ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর রেলম’ন্ত্রী হন তিনি।

Facebook Comments
Back to top button