পেটের কাছে পরাজিত করো’নাভাই’রাস

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় পেটের ক্ষুধার কাছে যেন হার মেনেছে করো’’নাভাই’রাস। করো’’নার ভ’য়কে তুচ্ছ মনে করেই কেবল স্ত্রী সন্তানের মুখের আহার জোটাতেই মাস্ক নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন হারেজ আলী।

স্ত্রীসহ ২ ছে’লে ১ মেয়ের সংসার সম্বলহীন হারেজ আলী। করো’’না ভাই’রাস সংক্রমণ রোধে চলছে ঘোষিত লকডাউন। জী'বিকার রসদ যোগাতে মিলছে না কোনো কাজ। অনেকটা বাধ্য হয়ে ৫শ টাকা ধার করেন প্রতিবেশীর কাছ থেকে। শুরু করেন মুখের মাস্ক 'বিক্রি।

প্রতিদিন ৪ থেকে পাঁচ শ টাকা 'বিক্রি হলে, লাভ হয় দের দুইশ টাকা। তা দিয়ে চলে সংসার নামের রেল গাড়ি। গত ক দিনে লকডাউনের কড়াকড়ি। রাস্তায় মানুষ নেই, বেচা কিনিও কম। তা ছাড়া প্রখর রোদে ঘুরাঘুরি করে মাস্ক 'বিক্রি করতে গিয়ে হাঁপিয়ে উঠেন হারেজ। বন্ধ দোকানের পাশে একটু বসতেই ঘু'মিয়ে পড়েন সে।

একটু ডাকতেই জেগে উঠে হারেজ বলেন, এটা ৫ আর এটা ১০ টাকা।

করো’’নাকে ভ’য় পাও না, জানতে চাইলে যুগান্তরকে হারেজ বলেন, পেটের খিদার সামনে করো’’নাভাই’রাস হাই’রা গেছে। বৌ-বাচ্চারা চাউলের জন্যে চাইয়া রইছে। বেচা 'বিক্রিও নাই কি করুম বলেন। রোদে জিরাইতে বইসা ঘু'মিয়ে পরছি আরকি।

Facebook Comments
Back to top button