মোবাইল-টাকা চু’রি করেন মামুনুল-তার ভাইসহ আ’সামিরা: পু’লিশ

হেফাজতে ইস’লামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মামুনুল হক ও তার ভাই মুহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া মা'দরাসার ৭০-৮০ জন ছাত্র মা’ম'লার বাদীসহ অন্যান্যদের ম’সজিদ থেকে বের করে দেয়।এসময় বাদীকে মা’রধর করে বাদীর সঙ্গে থাকা একটি স্যামসাং মোবাইল, নগদ সাত হাজার টাকা, ২০০ ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ড ও একটি মানিব্যাগ চু’রি করে নিয়ে যান আ’সামিরা। বাদীকে পুনরায় ম’সজিদে প্রবেশ করলে হ’'ত্যা করবে বলে হু’মকি দেন তারা।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) মামুনুল হককে আ’দালতে হাজির করে মা’ম'লার ত’দন্ত কর্মক’র্তা পু’লিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) নসাজেদুল হক রি’মান্ড আবেদনে এসব কথা উল্লেখ করেন। আবেদনে বলা হয়, গত বছরের ৬ মা’র্চ মোহাম্ম’দপুর সাত ম’সজিদ এলাকায় সাত গম্বুজ ম’সজিদে রাত সাড়ে ৮টায় আ’সামি মা’ওলানা মামুনুল হক ও তার ভাই মুহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মা'দরাসার ছাত্র আ’সামি ওম’র এবং ওসমান বাদী ও তার সঙ্গে থাকা অন্যদের ম’সজিদে আমল করতে নিষে'ধ করেন। তাদের ধ’র্মীয় কাজে আ’ঘা'ত করে ও ম’সজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন আ’সামিরা। বাদী প্রতিবাদ করলে মামুনুল হক ও তার ভাই মাহফুজুল হকের নির্দেশে মা'দরাসার আরও ৭০-৮০ জন ছাত্র বের হয়ে বাদীকে এলোপাতাড়ি মা’রধর করে গুরুতর জ’খম করে। আ’সামি ওম’র ও ওসমান তাদের হাতের লা’ঠি দিয়ে বাদীকে এলোপাতাড়ি আ’ঘা'ত করে। আ’সামিদের লা’ঠির আ’ঘা'তে গুরুতর জ’খম হয়ে ম’সজিদের ভেতরে শুয়ে পড়েন বাদী।

এরপর আ’সামিরা বাদীর কাছে থাকা একটি স্যামসাং মোবাইল, নগদ সাত হাজার টাকা, ২০০ ডলার ও ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ বাদীর একটি মানিব্যাগ নিয়ে যায়। বাদীকে পুনরায় ম’সজিদে প্রবেশ করলে হ’'ত্যা করবে বলে হু’মকি দেয় আ’সামিরা। আবেদনে ত’দন্ত কর্মক’র্তা আরও বলেন, আ’সামির (মামুনুল হক) বি’রু'দ্ধে মা’ম'লায় জড়িত থাকার সাক্ষ্যপ্রমাণ প্রাথমিকভাবে পাওয়া যায়। আ’সামি ধ’র্মীয় অনুভূ'ত িতে আ’ঘা'ত করে রা'ষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন বক্তব্যের মাধ্যমে ধ’র্মভীরু মু’সলমান ও মা'দরাসার ছাত্রদের উস্কানি দেয়। আ’সামির বি’রু'দ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন থা’নায় একাধিক মা’ম'লা রয়েছে। আ’সামি মা’ম'লার ঘটনার সঙ্গে জড়িত ও অন্যান্য আ’সামিদের চেনেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে মা’ম'লার ঘটনায় জড়িত অ’পর আ’সামিদের নাম ঠিকানা সংগ্রহ ও তাদের গ্রে'’ফতারসহ চো’রাই মাল উ’'দ্ধার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই মা’ম'লার সুষ্ঠু ত’দন্তের প্রয়োজনে এবং অ’পর আ’সামিদের গ্রে'’ফতারের লক্ষ্যে আ’সামি মামুনুল হকের সাত দিনের রি’মান্ডে নেয়া প্রয়োজন।

এর আগে সোমবার বেলা ১১টা ৯ মিনিটে মামুনুল হককে আ’দালতে হাজির করা হয়। এরপর তাকে আ’দালতের হাজত খানায় রাখা হয়। সেখান থেকে এজলাসে নেয়া হয়। পরে শুনানি শেষে বেলা ১১টা ৩৩ মিনিটের দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারী সাত দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করে আদেশ দেন।

মা’রধর, হ’'ত্যার উদ্দেশ্যে আ’ঘা'তে গুরুতর জ’খম, চু’রি, হু’মকি ও ধ’র্মীয় কাজে ইচ্ছাকৃতভাবে গোলযোগের অ’ভিযোগ এনে স্থানীয় এক ব্যক্তি মোহাম্ম’দপুর থা’নায় মামুনুলের বি’রু'দ্ধে এ মা’ম'লা’টি দায়ের করেন। রোববার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মা'দরাসা থেকে মা’ওলানা মামুনুল হককে গ্রে'’ফতার করা হয়। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নজরদারিতে ছিলেন।

Facebook Comments
Back to top button