নামাজ-রোজা-কোরআন পড়ার সুযোগ চান মামুনুল

রাজধানীর মোহাম্ম'দপুর থা'না এলাকায় নাশ'কতার অ'ভিযোগে করা মাম'লায় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মামুনুল হকের সাত দিনের রি'মান্ড মঞ্জুর করেছেন আ'দালত।

রি'মান্ড শুনানি চলাকালে বিচারক মামুনুলকে বলেন, ‘আপনার কী কিছু বলার আছে।’ জবাবে মামুনুল বিচারককে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আমি প্রতি রমজান মাসে ছয় বার কোরআন শরীফ খতম দেই। রমজান মাস পবিত্র মাস। এই মাসে আমি যেন রোজা, নামাজ ও কোরআন পড়তে পারি তার সুযোগ করে দেয়ার জন্য আবেদন করছি।’

এর আগে সোমবার (১৯ এপ্রিল) বেলা ১১টা ৯ মিনিটের দিকে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আ'দালতে হাজির করে পু'লিশ। এদিন ২০২০ সালের মোহাম্ম'দপুর থা'নার একটি ভাঙচুর ও নাশ'কতার মাম'লায় তাকে সাত দিনের রি'মান্ডে নিতে আবেদন করেন মাম'লার ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা।

অ’পরদিকে মামুনুলের আইনজীবী তার রি'মান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারী তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে সাত দিনের রি'মান্ড মঞ্জুর করেন।

রোববার (১৮ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর মোহাম্ম'দপুর থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মক'র্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ জাগো নিউজকে বলেন, ‘২০২০ সালের মোহাম্ম'দপুর থা'নার একটি ভাঙচুর ও নাশ'কতার মাম'লায় ত'দন্ত চলছিল। ত'দন্তে হেফাজত নেতা মামুনুলের সম্পৃক্ততার বি'ষয়টি সুস্প'ষ্ট হওয়ায় আমর'া তাকে গ্রে'ফতার করেছি। এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরু'দ্ধে অ'ভিযোগ রয়েছে।’

রোববার দুপুর ১২ টা ৫০ মিনিটের দিকে মোহাম্ম'দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মা'দরাসা থেকে মামুনুল হককে গ্রে'ফতার করে ঢাকা মহানগর পু'লিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগ।

Facebook Comments
Back to top button