সঠিক নিয়মে ছাড়াছাড়ি না হলে নাসিরের সাথে তামিমা’র বিয়ে বৈ’ধ নয়: শায়খ আহমাদুল্লাহ

তামিমা তাম্মি নামের এক নারীকে বিয়ে করে তুমুল বিত’র্কে’র জন্ম দিয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকে’টে ‘ব্যা’ড বয়’ খ্যাত নাসির হোসেন। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের দিনে গাঁ’টছ’ড়া বাঁধেন নাসির-তামিমা। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর গু'’লশানের লেকশোর হোটেলে আলোচিত নাসির-তামিমা জুটির বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

কিন্তু এই বিয়ে নিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন সম’স্যা। নাসিরের স্ত্রী তামিমা তাম্মির এর আগেও বিয়ে হয়েছিল। সেই স্বামীকে ডি’ভো’র্স না দিয়েই তিনি নাসিরকে বিয়ে করেছেন বলে অ’ভিযো’গ উঠেছে। ফলে নাসির-তামিমা’র বিয়ে ইসলামি শরীয়ত মতে বৈ’ধ হয়েছে কি-না সেটা নিয়ে বিত’র্ক শুরু হয়েছে।

এ বি’ষয়ে বিশি’'ষ্ট ইসলামিক স্কলার ও আস সুন্নাহ ফাউন্ডেশন এর চেয়ারম্যান শায়খ আহমা’দুল্লাহ তার ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পো’স্ট করেছেন। সেখানে তিনি ইসলামি শরীয়তের আলোকে বি’ষয়টি ব্যাখা করেছেন।

তিনি বলেছেন, নাসিরের বর্তমান স্ত্রী তামিমা’র স’ঙ্গে তার পূর্বের স্বামীর যদি শরীয়তসম্মতভাবে ছাড়াছাড়ি না হয়ে থাকে, তাহলে কোনভাবেই নাসিরের সাথে তার এই বিয়ে বৈ’ধ নয়। তবে এর জন্য এখানে আমা’দের দুটি বি’ষয় নি’শ্চিত করতে হবে।

প্রথম বি’ষয় হলো, তামিমা’র সাথে তার প্রথম স্বামীর ছাড়াছাড়িটা ইসলামী শরীয়ত সম্ম’তভাবে হয়েছে কি-না। আর ডিভোর্স লে’টার পাঠানো এবং সেই ডি’ভো’র্স লেটারটি ইসলামী শরীয়ত সম্মতভাবে বিয়ে বি’চ্ছে’দ হওয়া পর্যন্ত পৌঁছেছে কি-না, এই বি’ষয়টি বিবেচনা করতে হবে।

আর দ্বিতীয় বি’ষয় হলো, যদি তার (নাসিরের স্ত্রী তামিমা) শরীয়ত সম্মতভাবে ছাড়াছাড়ি বা বি’চ্ছে’দ হয়ে থাকে, তবুও তাকে তিন মাস অথবা তিন পি’রি’য়ডের সময় পর্যন্ত ইদ্দত পালন করতে হবে। সেটা হয়েছে কি-না নিশ্চিত করতে হবে।

এই দুটি বি’ষয়ের কোন একটি বি’ষয় যদি অনুপস্থিত থাকে, তাহলে নাসিরের বিয়ে শু’’'দ্ধ হবে না। বরং এটি একটি অবৈ'ধ বিয়ে। এখন তাদের জন্য করণীয় হলো, যদি তারা ঘর সংসার করতে চায়, তাহলে আমর'’া যে দুটি শর্তের কথা বলেছি-এই দুটি শর্ত মেনে তারপর তাদের বিয়ে ব’ন্ধনে আব’’'দ্ধ ‘'হতে হবে। অ’ন্যথায় এটি বিয়ে তো হবেই না বরং এটি যি’না-ব্য”ভি’চার হিসেবে সা’ব্য’স্ত হবে।

Facebook Comments
Back to top button