অবশেষে ফাঁস হলো ১০ টাকার বিরিয়ানির রহস্য

বছর দুয়েক আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যেমে ভাইরাল হয় পুরান ঢাকার ১০ টাকার বিরিয়ানি পাওয়ার ঘটনা। শুধু বিরিয়ানি নয়, ডিমসহ পুরো এক প্লেট বিরিয়ানি পাওয়া যায় মাত্র ১০ টাকায়। বর্তমানে দামটা একটু বেশি হলেও সবার মনেই তখন একটা প্রশ্ন ঘুরপাক খায় তা হল ১০ টাকায় কিভাবে? এই ১০ টাকার বিরিয়ানি নিয়ে 'ট্রল পেইজগু'লো বলছে, দেশে নাকি ১০ টাকার বিরিয়ানি চলে? ১০ টাকার বিরিয়ানি দিবি কি-না বল? ১০ টাকার বিরিয়ানি কি জীবনের সবকিছু?

তবে ১০ টাকার বিরিয়ানি আসল রহস্য জানা গেলো এবার। পুরান ঢাকার ওয়ারীর বনগ্রাম মসজিদের নিচে এই বিরিয়ানীর দোকান। জানা গেছে, এই বিরিয়ানির উদ্যোক্তরার নাম তানভীর। সবার কাছে তিনি ‘তানভীর ভাই’ নামেই সমাধিক পরিচিত। তিনি বলেন, ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে নয়, দরিদ্র শিশুদের জন্যই এ উদ্যোগ। পাশপাশি পুরান ঢাকার ঐতিহ্য তো রয়েছে-ই।

এ বিরিয়ানির প্রধান ক্রেতারা আশপাশের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মর'ত শ্রমিকরা। তবে কীভাবে শুধু ১০ টাকায় বিরিয়ানি দিচ্ছেন- এমন প্রশ্নে ব্যবসায়ী তানভীর জানান, আগে এক প্লেট বিরিয়ানির মূল্য ১০ টাকা থাকলেও এখন ৩৫ টাকা।

তিনি বলেন, পুরান ঢাকার কা'প্ত ান বাজার ঘুরে কম'দামে পোলাও এর পুরনো চাল এবং মুরগির ‘ছাটকা’ (রোস্টের অংশ নেওয়ার পর যা বাকি থাকে) সংগ্রহ করেন। এসব দিয়েই তৈরি হয় বিরিয়ানি।

এদিকে ফেসবুকে অনেকে লিখেছেন এমন, কারো যদি ১০ টাকা দেয়ার সামর'্থ নাও থাকে তাহলেও তানভীর তার হাতে বিরিয়ানি তুলে দেন। কোনো শিশুর হাত থেকে যদি বিরিয়ানির প্লেট পড়ে যায় তাহলে তার হাতে নতুন প্লেটে বিরিয়ানি তুলে দেন তানভীর।

আরেকজন লিখেছেন, কয়েক বছর ধরে এখানে বিরিয়ানি 'বিক্রি 'হতে দেখছি। 'বিকেল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিরিয়ানি পাওয়া যায়। বিরিয়ানি সুস্বাদু হওয়ায় সব সময়ই ভিড় লেগেই থাকে। তিনি আরো বলেন, সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে ১০ টাকার বিরিয়ানি নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে। আমা'র মনে হয় সমালোচনার করার আগে এখানকার বিরিয়ানি খাওয়া উচিত।

Facebook Comments
Back to top button