পাঁচ লাখ টাকার জন্য চিকিৎসা থেমে আছে পল্লী চিকিৎসকের

মো. আব্দুর রাজ্জাক ওরফে রাজু (৫৮)। যশোর জে'লার মনিরামপুর থা'নার দেবীদাসপুর গ্রামের মৃ'ত গাজী শামসুর রহমানের ছেলে। ডিগ্রি পাসকোর্স পড়াশোনা শেষে সংসার শুরু করেন। ২০১০ সালে পরিবার নিয়ে সাভার উপজে'লার আশুলিয়া থা'নার পাথালিয়া ইউনিয়নের চারিগ্রাম এলাকায় এসে ভাড়া বাড়িতে বসবাস শুরু করেন তিনি।

জী'বিকা নির্বাহের জন্য তিনি পল্লী চিকিৎসক হিসেবে প্র'শিক্ষণ নিয়ে চারিগ্রাম বাজারে মেয়ে নীরার নামে একটি ফার্মেসি খোলেন। ভালো বেচাকেনা ও জমজমাট ব্যবসা হওয়ায় তার দিন ভালোই চলছিল।

কিন্তু হঠাৎ ২০১৬ সালে হার্ট অ্যাটাক হলে পাল্টে যায় তার জীবনের গতি। রাতে অ'সুস্থবোধের পরের দিন জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিউটের আইসিউতে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়। সেখানে পরীক্ষা নীরিক্ষায় তার হার্টে বেশ কয়েকটি ব্লক ধ’রা পড়ে। এজন্য তাকে ওপেট হার্ট সার্জারি করার পরামর'্শ দেন চিকিৎসকরা।

কিন্তু প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে এ অ’পারেশন করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই বিনা চিকিৎসায় ধুকে ধুকে জীবন পার করছেন পল্লী চিকিৎসক আব্দুর রাজ্জাক।

চার সদস্যের পরিবারে আব্দুর রাজ্জাক একসময় একাই সংসার খরচে যোগান দিলেও বর্তমানে তিনি গু'রুতর অ'সুস্থ হওয়ায় তার রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে। একমাত্র ছেলে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। প্রতিমাসে ৮-১০ হাজার টাকা দিয়ে সংসারে সহযোগিতা করলেও ব্যয়ের তুলনায় তা অতি সামান্য।

একমাত্র মেয়ে ফাতেমা আক্তার নীরা শারীরিক এবং বু'দ্ধি প্রতিব'ন্ধী । এর ওপর স্ত্রীর অ'সুস্থতা যেন মর'ার উপর খাড়ার ঘাঁ। তিন বছর আগে স্ত্রী রেহানা বেগম স্ট্রোক করে দৃ'ষ্টিশক্তি হারান। জমিজমা যা ছিল তা 'বিক্রি করে নিজের পাশাপাশি খরচ করেছেন স্ত্রীর চিকিৎসায়। আগে একেবারেই না দেখলেও চিকিৎসার পর এখন অল্প দেখতে পান রেহানা।

প্রায় দশ বছর ধরে আব্দুর রাজ্জাক পরিবার নিয়ে সাভার উপজে'লার আশুলিয়া থা'নার পাথালিয়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডে ভাড়া বাসায় বসবাস করছেন। এখানকার তেমন কোনো লোকজনের সাথে পরিচয় নেই তার। জনপ্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ না থাকায় কোনো প্রকার সাহায্য সহযোগিতাও পাননি।

পল্লী চিকিৎসক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে। দোকানেও পর্যা'প্ত ওষুধ নেই। যা ছিল তা 'বিক্রি করে চিকিৎসার পেছনে ব্যয় করেছি। এছাড়া বেশিরভাগ সময় হাসপাতাল এবং বাসায় বিশ্রামে থাকার কারণে ঠিকমতো ব্যবসা চালাতে পারছি না। এই অবস্থায় নিজের এবং পরিবারের চিকিৎসার জন্য সরকার ও সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

পাথালিয়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ড সদস্য শফিউল আলাম সোহাগ বলেন, অ'সুস্থ চিকিৎসকের বি'ষয়টি এখনই প্রথম শুনলাম। তিনিতো আমা'র কাছে কখনও আসেননি। আমি বি'ষয়টি খোঁজ নিয়ে আমা'র সাধ্যমতো ওনাকে সহযোগিতা করব।

Facebook Comments
Back to top button