আওয়া’মী লীগ ৪৫, বিএন’পি ৩, অন্যান্য ১৪

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে ৬২ পৌরসভার মধ্যে বেশিরভাগেই জয়ী আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীরা। আওয়ামী লীগ ৪৫, স্বতন্ত্র ১৪ ও ৩ বিএনপি প্রার্থী জয় পেয়েছেন। নির্বাচন কমিশন বলছে, দু-একটি বিচ্ছিন'্ন ঘটনা ছাড়া অধিকাংশ পৌরসভায় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ হয়েছে।

এর আগে, শনিবার সকাল ৮টা থেকে 'বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে টানা ভোটগ্রহণ। এই ধাপে সবগু'লো পৌরসভাতে ভোট হয় ব্যালট পেপারে। এ ধাপের নির্বাচনে মেয়র পদে ২২৯ জন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ৭৫৫ এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২ হাজার ৩৬০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। শীত উপেক্ষা করে ভোটকেন্দ্রে ভিড় করেন ভোটাররা। নারীদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো।

এদিকে, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, মুন্সিগঞ্জে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর কর্মী সমর'্থকদের মধ্যে সং'ঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে গু'লিবি'দ্ধসহ আ'হত হয় অন্তত ২৫ জন। এছাড়া অনিয়মের অ'ভিযোগে কয়েক পৌরসভায় নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

সকালে ফেনী পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে মেহেদি সাঈদি ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যাব'ার সময় বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থীর ওপর হাম'লা হয়। এতে প্রার্থীসহ কয়েকজনকে পি'টিয়ে আ'হত করা হয়। ঘটে ককটেল বি'স্ফো'রণের ঘটনা। গোপ'ালগঞ্জে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর'্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পু'লিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মুন্সিগঞ্জ সদর পৌরসভায় দুই নারী কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর'্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সং'ঘর্ষ হয়। এসময় ২০মিনিট বন্ধ ছিল ইদ্রাকপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে দুপক্ষের সং'ঘর্ষে ৩জন গু'লিবি'দ্ধসহ ২০ জন আ'হত হয়েছে। এছাড়া, ভোট শুরুর আড়াই ঘণ্টার মধ্যে অনিয়মনের অ'ভিযোগে সাতক্ষীরায় কলোরোয়ায় বিএনপি মেয়র প্রার্থী, ঝালকাঠির নলছিটিতে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং কিশোরগঞ্জ সদর ও কটিয়াদিতে বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থী নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

তৃতীয় ধাপে ৬৫ পৌরসভায় নির্বাচন হওয়ার থাকলেও, বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র পদে তিন জন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৯ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৫ জন নির্বাচিত হয়েছেন।

দেশে পৌরসভা রয়েছে মোট ৩২৯টি। করো’নাভাইরাস মহামা'রীর মধ্যে এবার পাঁচ ধাপে এসব পৌরসভায় নির্বাচন করছে কমিশন। প্রথম ধাপের তফসিলের ২৪টি পৌরসভায় গত ২৮ ডিসেম্বর ইভিএমে ভোট হয়েছে। এরপর ১৬ জানুয়ারি ভোট হয়েছে দ্বিতীয় ধাপের ৬১ পৌরসভায়। তৃতীয় ধাপের পর চতুর্থ ধাপে ১৪ ফেব্রুয়ারি এবং পঞ্চম ধাপে ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণ হবে।

দলীয় প্রতীকের এ ভোটে মেয়র পদে প্রথম ধাপে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে ১৮ জন, বিএনপির দুই জন এবং তিনজন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হন। দ্বিতীয় ধাপে আওয়ামী লীগের ৪৫ জন, বিএনপির ৪ জন, জাতীয় পার্টির ১ জন, জাসদের ১ জন ও ৮ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী মেয়র পদে বিজয়ী হন। মহামা'রীর মধ্যে প্রথম ধাপে ৬৫ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ধাপে ৬২ শতাংশ ভোটগ্রহণ হয়।

Facebook Comments
Back to top button