মানবাধিকার পুরস্কার জিতল ‘ব্ল্যা’ক লাইভস ম্যা’টার’

বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলন ও জাতিগত বৈষম্যের প্রতিবাদের কারণে সুইডেনের সম্মানজনক ওলফ পালমে হিউম্যান রাইটস প্রাইজ জিতেছে দ্য ব্ল্যা'ক লাইভস ম্যাটার গ্লোবাল নেটওয়ার্ক ফাউন্ডেশন। বিশ্বজুড়ে ‘পু'লিশের ব'র্ব'রতা এবং জাতিগত সহিং'সতার বিরু'দ্ধে শান্তিপূর্ণ নাগরিক অবাধ্যতাকে প্রচার করায় এ ফাউন্ডেশনকে সম্মান জানানো হয়েছে বলে জানায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

সারা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের পাশাপাশি শুধু যুক্তরা'ষ্ট্রেই ব্ল্যা'ক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনে দুই কোটি মানুষ অংশ নেয়। অনলাইন আয়োজনের মাধ্যমে শনিবার (৩০ জানুয়ারি) সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে এ পুরস্কার দেওয়ার কথা রয়েছে।

এ পুরস্কারের মূল্যমান এক লাখ ডলার। ১৯৮৬ সালে আততায়ীর হাতে নি'হত সুইডিশ প্রধানমন্ত্রী ও প্রসি'দ্ধ মানবাধিকার সমর'্থক ওলফ পালমের নামে এই পুরস্কার চালু করা হয়।

২০১৩ সালে যুক্তরা'ষ্ট্রে শুরু হয় ব্ল্যা'ক লাইভস ম্যাটার অন্দোলন। এরপর আফ্রিকান-আমেরিকানদের ওপর ঘটা একাধিক নিষ্ঠুর ঘটনার প্রেক্ষিতে আন্তর্জাতিক স্লোগানে পরিণত হয় এটি। জর্জ ফ্লয়েড, ব্রেওনা টেইলর ও আরও কিছু মৃ'ত্যুর পর এ আন্দোলন যুক্তরা'ষ্ট্র ও সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

পুরস্কারদাতাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বিএলএম দেখায় যে বর্ণবাদ ও বর্ণবাদী সহিং'সতা শুধু আমেরিকান সমাজের সমস্যা নয়, এটা বৈশ্'বিক সমস্যা। তাদের মতে, বর্ণের কারণে সমভাবে মূল্যায়িত না হওয়া আফ্রিকান-আমেরিকান সংখ্যালঘুদের ক'ষ্ট, বেদনা ও ক্রোধকে প্রকাশ করেছে এ ফাউন্ডেশন।

নরওয়ের এমপি পিটার আইডে এ বছরের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য বিএলএম ফাউন্ডেশনকে মনোনীত করেছেন। মনোনয়নপত্রে তিনি জানান, জাতিগত অবিচারের বিরু'দ্ধে বিশ্বব্যাপী লড়াইয়ে এই ফাউন্ডেশন গু'রুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

Facebook Comments
Back to top button