মুনিয়ার অতীতের সব জানালেন তার বোন নুসরাত তানিয়া

মুনিয়াদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা শহরের মনোহরপুর উজির দিঘির দক্ষিণ পাড়ে। সেখানে মুনিয়াদের পৈত্রিক একতলা পাকা দালান আছে। নবম শ্রেণি পর্যন্ত মুনিয়া কুমিল্লায় পড়াশোনা করেন। হঠাৎ কেনো ঢাকায় পড়তে আসা? কোন স্কুল ও কলেজে পড়েছেন? বাবা মা’রা যাওয়ার পর কিভাবেই বা মুনিয়ার পড়াশোনার খরচ চলতো? সেসব নিয়ে এবার গণমাধ্যমে বিস্তারিত জানালেন মোসারাত জাহান মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান তানিয়া।

নুসরাত বলেন, `বাবা মা’রা যায় ২৭ সেপ্টেম্বর, তার (মুনিয়ার) টেস্ট পরীক্ষা মেবি অক্টোবরের ২ তারিখ, অংক পরীক্ষা ছিল। দিতে পারেনি, না হয়তো খারা’প হয়েছিল। তার কারণে তাকে টেস্টে অ্যা’লাউ করেনি। যার কারণে তার বিশাল আকার ক্ষ’তি হয়েছিল ইডুকেশনাল। সে খুব ডি’প্রেস’ড হয়েছিল এবং আব্বুর কিছু বন্ধু-বান্ধব ওইবার এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার জন্য হে’ডমি’স্ট্রেস’কে অ’নুরো’ধ করেছিল। কিন্তু কোনোভাবেই পরীক্ষার জন্য ফর্ম পূরণ করতে দেওয়া হয়নি। সেবার আর তার পরী’ক্ষা দেওয়া হয়নি। এই অবস্থাতেই ৭-৮ মাস কে’টে গেল। কিছুই বুঝতে পারছিলাম না কি করবো।

এরপর একজন পরাম’র্শ দিল, যেহেতু মুনিয়া সায়েন্সে পড়ত সুতরাং অন্য কোনো বোর্ড থেকে পরীক্ষা দিয়ে ডিপার্টমেন্ট পরিবর্তন করলে অর্থাৎ আর্টস নিলে পরীক্ষা দিতে পারবে। যেহেতু সে সময় ভর্তির টাইম টা প্রায় শেষ হয়ে এসেছিল তাই অন্য কোনো বোর্ডের স্কুলে তাকে নিতে চাইছিলনা। আমা’রা কুমিল্লা, সিলেট যোগাযোগ করার পর ঢাকায় ভর্তির সি’'দ্ধান্ত নেই। অবশেষে ঢাকা ন্যাশনাল বাংলা স্কুলে এক আংকেলের মাধ্যমে ব্যবস্থা করলাম। তারাও রা’জি হয়ে গিয়েছিল, যেহেতু মুক্তিযো'দ্ধার সন্তান ভালো রেজাল্ট করলে স্কুলের সুনাম হবে। তাকে সেখানে ভর্তি করার পর হোস্টেলে দেওয়া হয়। হোস্টেলের নাম রেণু মহিলা হোস্টেল। সেখানে দেওয়ার পর আমি প্রতি স'প্ত াহে সেখানে যেতাম। সেই স্কুল থেকে সে এসএসসি জিপিএ ৩.২৮ পেয়ে পাস করে।

২০১৮ সালের মে মাসে যখন তার রেজাল্ট আসে তখন আম্মু বিআরবি হসপিটালের আইসিইউতে। এর মধ্যে আম’রা সবাই হাসপাতা’লে। আবার তাকে ভর্তিও করতে হবে। ভর্তি করতে না পারলে একবছর পি’ছিয়ে যাবে। এরমধ্যে জুন মাসের ১২ তারিখে আম্মু মা’রা যায়। পরে মুনিয়া বলে সে অনলাইনে আবেদন করেছিল বান্ধবীদের সাথে। সেই আবেদনে মুক্তিযো'দ্ধার কোটায় তার কলেজ এসেছে মিরপুর ক্যান্ট. পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ। মুক্তিযো'দ্ধার কোটায় সে একজনই। সেখানে আমি এবং আমা’র হাসবেন্ড গিয়ে অ’ভিভাবক হয়ে তাকে ভর্তি করাই। ভর্তি করার পর মুনিয়া আর হোস্টেলে থাকতে রাজি হয়না। পরে তাকে একটি আংকে’লের ফ্ল্যাট ভাড়া করে দেই ১১ হাজার টাকায়। সেখানে সে তার হোস্টেলের কিছু মেয়ে ও কলেজের কিছু মেয়ে নিয়ে থাকতো।

মুনিয়ার খরচ গত মাস পর্যন্ত আম’রাই চালিয়েছি। আম’রা চালিয়েছি বলতে বাবার যে মুক্তিযো’'দ্ধার ভাতা পাওয়া যেত, বাবা মা’রা যাওয়ার পর আম’রা সেটা মুনিয়ার নামে করে দেই। তাছাড়া এর বাইরে প্রতি মাসে আরও যা যা খরচ লাগতো সেটা আম’রা বহন করতাম।২০১৯ সালের শেষের দিকে সঠিক তারিখ খেয়াল নাই, মুনিয়া জানায় সে বনানীতে বাসা নিচ্ছে। সেখানেও সে আরও কিছু মেয়ে নিয়েই উঠেছিল। পরবর্তীতে ২০২০ সালের মা’র্চের শেষ দিকে আমি যখন সব জানতে পারি তখন আমি মুনিয়াকে নিয়ে বাসায় নিয়ে আসি। সে সময় ল’কডা’উনের মধ্যেই তাকে বাসায় নিয়ে আসি। সবশেষে মুনিয়ার বোন নুসরাত জাহান তানিয়া সাংবাদিকদের কাছে প্রশ্ন রাখেন, আপনারা মুনিয়ার পড়াশোনার ব্যাপারে এত কিছু জানতে চাইছেন, এত লিখালিখি করছেন, কিন্তু মুনিয়া যে কবরে সে ব্যাপারে আপনারা কি করছেন

Facebook Comments
Back to top button