শিক্ষকদের ঈদ বোনাস ব্যাংকে

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এপ্রিল মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস ছাড় করা হয়েছে।রোববার (২ মে) রা'ষ্ট্রায়ত্ত ৪টি ব্যাংক সোনালী, রূপালী, অগ্রণী ও জনতা মাধ্যমে ৮টি চেক ছাড় করা হয়। শিক্ষক-কর্মচারীদের আগামী ৮ মে’র মধ্যে বেতন-বোনাসের টাকা তুলতে হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের ওয়েবসাইট (emis.gov.bd) থেকে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের এমপিওর শিট ডাউনলোড করতে বলা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) সাধারণ প্রশাসন শাখার উপ-পরিচালক মো. রুহুল মমিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞ'প্ত িতে বলা হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরাধীন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষক-কর্মচারীদের এপ্রিল মাসের বেতন-ভাতার সরকারি অংশের ৮টি চেক ছাড়া হয়েছে। অনুদান বণ্টনকারী অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, প্রধান কার্যালয়ে এবং জনতা ও সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, স্থানীয় কার্যালয়ে এটি হস্তান্তর করা হয়েছে। আগামী ৮ মে পর্যন্ত সংশ্লি'ষ্ট শাখা ব্যাংক হতে বেতন-ভাতা উত্তোলন করতে পারবেন।

এদিকে শিক্ষকদের বেতনের ২৫ শতাংশ আর কর্মচারীদের বেতনের ৫০ শতাংশ ঈদ বোনাসে অ'সন্তোষ প্রকাশ করেছেন শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

বেসরকারি শিক্ষক সমিতির সভাপতির সভাপতি নজরুল ইসলাম রনি বলেন, একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে কেউ ২৫ শতাংশ আর কেউ ৫০ শতাংশ ঈদ বোনাস পাবে এটি একটি বৈষম্য। এ বৈষম্য নিরসনে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীকে নয় দফায় স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বেতনের শতভাগ বোনাস পাচ্ছেন, আর আমা'দের মোট বেতনের ২৫ শতাংশ ঈদ বোনাস দেয়া হচ্ছে। একজন সহকারী শিক্ষক যা পাচ্ছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানকেও তাই দেয়া হচ্ছে।

দ্রুত এ বৈষম্য নিরসনের দাবি জানিয়ে এই শিক্ষক নেতা বলেন, করো’না পরিস্থিতির মধ্যে শিক্ষকরা ক'ষ্টের মধ্যে জীবনযাপন করছেন। বেতনের ২৫ শতাংশ বোনাস দিয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঈদ উৎসব পালন করা সম্ভব নয়।

Facebook Comments
Back to top button